মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৯, ১২:৪৩ অপরাহ্ন
৩৫.০৮ °সে

ধর্মচিন্তা


মিরাজ ও বিজ্ঞান।

ফাইল ছবি

মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ সা: নবুওয়ত প্রাপ্তির পর দীর্ঘ ১২টি বছর কুরাইশদের বাধা-বিপত্তির মোকাবেলায় মহান আল্লাহর বিধান প্রচার-প্রসার ও স্থায়ীভাবে প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে যখন এমন এক পর্যায়ে পৌঁছলেনÑ চারদিকে অসত্যের ধারক-বাহকরা হিংস্রতার চরম আঘাত হানতে প্রস্তুত, সাহায্যকারী মানুষের মধ্য থেকে প্রাণপ্রিয় হজরত খাদিজা রা: ও চাচা আবু তালিব লোকান্তরিত, অসত্যের কোপানলে মক্কাভূমি উত্তপ্ত, মা হালিমা রা:-এর স্নেহ ভূমি তায়েফ থেকে নিদারুণ আশাহত হয়ে ফিরে এসে মানসিক দিক দিয়ে চরম বিপর্যস্তÑ এমনি এক সঙ্কটকালে অবিলম্বে ইসলামী সমাজব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে কিয়ামত পর্যন্ত বিশ্বের বুকে আগত সব মানুষের ওপর মহান আল্লাহর বিধান কার্যকর করার বাস্তবধর্মী ব্যবস্থা গ্রহণ করার উদ্দেশ্যে সর্বোপরি সময় ও কালের ঊর্ধ্বে ওঠে সব সৃষ্ট বস্তু ও তার প্রতিক্রিয়াকে উপলব্ধি, সৃষ্টি জগতের গোপন রহস্য অবলোকন ও মনোবল দৃঢ় করার নিমিত্ত মহান আল্লাহর একান্ত সান্নিধ্য লাভের প্রত্যাশায় রাসূলুল্লাহ সা: মদিনায় হিজরতের এক বছর আগে ৬২২ খ্রিষ্টাব্দের রজব মাসের ২৬ তারিখ দিবাগত রাতে সশরীরে মিরাজের মাধ্যমে মহান আল্লাহর একান্ত সান্নিধ্য লাভে ধন্য হয়েছিলেন। জাগতিক হিসেবে রাসূলুল্লাহ সা: মিরাজে ২৭ বছর সমপরিমাণ সময় ব্যয় করেছিলেন।
প্রত্যেক নবী-রাসূলের জীবনেই কিছু না কিছু মুজিজা বা অলৌকিক ঘটনা থাকে। রাসূলুল্লাহ সা:-এর মুজিজাগুলোর মধ্যে মিরাজ অন্যতম। এটি এমনই একটি ঘটনা, যার সাথে রয়েছে ঈমানের গভীরতম সম্পর্ক। কাজেই মিরাজের বৈজ্ঞানিক যুক্তি খুঁজতে যাওয়া একটি অবান্তর চিন্তা। বলা বাহুল্য, যুক্তি কোনো দিনই ঈমানের ভিত্তি নয়Ñ ঈমানই হচ্ছে যুক্তির ভিত্তি। বরং যুক্তির ক্ষমতা যেখানে শেষ ঈমানের যাত্রা সেখান থেকেই শুরু। তারপরও কোনো কোনো মহৎ ব্যক্তির এ ব্যাপারে যুক্তির অবতারণা সেটা শুধু ঈমানের স্বাদ অনুভব করার জন্যই। বিজ্ঞানের এ চরম উৎকর্ষতার যুগে আমরাও তাই মিরাজকে বিজ্ঞানের আলোকে বিশ্লেষণ করে দেখতে চাই। 
বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিতে সশরীরে মিরাজের সত্যতা যাচাই করতে যেয়ে আমরা নি¤েœাক্ত প্রশ্নগুলোর সমাধান দেয়ার চেষ্টা করব। পৃথিবীর মাধ্যাকর্ষণ শক্তির বেড়াজাল কিভাবে ছিন্ন করা সম্ভব? সময় সংক্রান্ত অসামঞ্জস্যতাÑ এর ব্যাখ্যা কী? পূর্ববর্তী নবীগণের সাথে সাক্ষাৎ কী করে হলো? 
পৃথিবীর মাধ্যাকর্ষণ শক্তি : রাসূলুল্লাহ সা:-এর স্বশরীরে মিরাজের বিরুদ্ধে বিরুদ্ধবাদীদের প্রধান যুক্তি হলোÑ জড়জগতের নিগঢ়ে আবদ্ধ স্থূলদেহী মানুষ কিভাবে মাধ্যাকর্ষণ শক্তি ভেদ করে আকাশলোকে বিচরণ করে? তা ছাড়া পৃথিবীর আকর্ষণীয় শক্তি যেখানে শূন্যে অবস্থিত স্থূলবস্তুকে মাটির দিকে টেনে নামায় সেখানে কী করে মহানবী সা: স্বশরীরে মিরাজে গমন করেন?
গতি বিজ্ঞান (Dynamics) মাধ্যাকর্ষণ তত্ত্ব (Law of Gravity) এবং আপেক্ষিক তত্ত্বের (Law of Relativity) সর্বশেষ বিশ্লেষণ ও পর্যালোচনার আলোকে মিরাজের ঘটনাকে বিচার করলে এর সম্ভাব্যতা সহজেই আমাদের কাছে বোধগম্য হয়ে উঠে। বিংশ শতাব্দীর মধ্যভাগ পর্যন্ত বিজ্ঞানীরা বিশ্বাস করতে পারেননি যে, মাধ্যাকর্ষণ শক্তিকে ভেদ করা সম্ভব। যেমনÑ স্যার আইজাক নিউটনের সূত্র অনুসারেÑ ‘law of motion and the idea of universal gravitation’ বা মাধ্যাকর্ষণ নীতি যা ডিঙ্গানো অসম্ভব। কিন্তু সত্তরের দশকের বিজ্ঞানীরা চাঁদে পৌঁছার মাধ্যমে প্রমাণ করেছেন, মাধ্যাকর্ষণ শক্তিকে ডিঙ্গানো সম্ভব। এ সম্পর্কে আধুনিক বৈজ্ঞানিক Arther G Clark তার The exploration of space’ গ্রন্থে বলেছেন, ‘As the distance from the earth lengthens in to the thousand of miles the reduction (of Gravity) becomes substantial twelve thousand miles up, an one–pound weight would weight only an one ounce. It follows, therefore, that further away one goes from the Earth. The easier it is to go onwards’’.
তিনি অন্যত্র বলেছেন, Gravity y steadily weakens as we go up words away from Earth, until at very great distances it becomes completely negligible’. 
এভাবে আকর্ষণ ক্ষমতা যখন মোটেই বোঝা যায় না সে অবস্থাকে Zero Gravity বলা হয়। গতি বিজ্ঞানীরা আরো জানিয়েছেন, ঘণ্টায় ২৫ হাজার মাইল বেগে ঊর্র্ধ্বালোকে ছুটতে পারলে পৃথিবীর আকর্ষণ থেকে মুক্তি লাভ সম্ভব। এ গতি মাত্রাকে তারা মুক্ত গতি (Escape velocity) নামে আখ্যায়িত করেন।
আমরা জানি রাসূলুল্লাহ সা: ‘বুরাক’ নামক এক অলৌকিক বাহনের ওপর বসে ঊর্র্ধ্বালোকে গমন করেছিলেন। আরবি শব্দ ‘বারকুন’ অর্থ বিদ্যুৎ। বুরাক বলতে মূলত বিদ্যুৎ থেকে অধিক গতিসম্পন্ন বাহনকে বুঝায়। 
অতএব দেখা যাচ্ছে মাধ্যাকর্ষণ যুক্তি দ্বারা মিরাজের সম্ভাবনাকে নিবারিত করা যাচ্ছে না।
সময় সংক্রান্ত অসামঞ্জস্যতার ব্যাখ্যা : আপেক্ষিক তত্ত্বের প্রবক্তারা বলছেন, সময়ের স্থিরতা বলতে কিছুই নেই, ওটা আমাদের মনের খেয়ালমাত্র। বস্তুত সময় সম্বন্ধে আমাদের জ্ঞান ও ধারণা আপেক্ষিক। সময়ের প্রভাব সকলের ওপর সমান নয় বলেই আইনস্টাইন বলেছেন, “There is no standard time, all time is local. দর্শকের গতির তারতম্যে বস্তু বা ঘটনার স্থান নির্ণয়ে তারতম্য ঘটে। আবার একই সময়ে বিভিন্ন স্থানে সংঘটিত দু’টি ঘটনা দর্শকের গতির তারতম্যে বিভিন্ন সময়ে সংঘটিত হচ্ছে বলে মনে হয়। গতির মধ্যে সময় অস্বাভাবিকভাবে খাটো হয়ে যায়। সময় সম্বন্ধে আমাদের ধারণার এই আপেক্ষিকতা গতি সম্বন্ধীয় স্বতসিদ্ধের ওপর আপতিত হলে যে ফলাফল দাঁড়ায় তা হল স্থান ও কাল সম্পর্কে আমাদের উপলব্ধিটা একটা গোলক ধাঁধাঁর মধ্যে আপতিত বলে মনে হতে পারে। কিন্তু প্রকৃত অবস্থা তা নয়। আলোক বিজ্ঞানের আবিষ্কারের ফলে এটা আজ সবার জানা যে, আলোকরশ্মি সেকেন্ডে এক লাখ ৮৬ হাজার মাইল অতিক্রম করে। আলোর গতিই সর্বোচ্চ এ ধারণাও ইদানীং আবার ধ্রুব সত্য হিসেবে স্বীকৃত নয়। Herold Leland Goodwin Zvi Space Travel গ্রন্থে বলেছেন, ‘আলোর গতি অপেক্ষা মনের গতি ঢের বেশি।’ যাই হোক, আলোর গতির সাথে কোনো বস্তুর গতির সামঞ্জস্যের তারতম্যই (Degree of Dispersion) সময়ের তারতম্য ঘটার অন্যতম কারণ। 
উপরের বৈজ্ঞানিক তথ্যের আলোকে মিরাজের ঘটনা পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, বুরাক আরোহী রাসূলুল্লাহ সা:-এর গতির মাত্রা এত বেশি ছিল যে, সব ঘটনাই পৃথিবীর দর্শকের কাছে কয়েক মুহূর্তের ঘটনা বলে মনে হলেও কালের প্রবাহে তা ছিল দীর্ঘ সময়।
 
লেখক : গবেষক

May: Ousting Me Won't Help

Resize the browser window to see.

KFC - Killing Fabulous Chickens
Total time 45:12
Cinque
May: Ousting Me Won't Help
UK POLICIES

মন্তব্যসমূহ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

শিরোনাম